বাংলাদেশে মঙ্গল-বুধবার আঘাতের সম্ভাবনা : ঘূর্ণিঝড় আম্ফান

অনলাইন ডেস্কঅনলাইন ডেস্ক
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৩:০৯ পিএম, ১৭ মে ২০২০

দক্ষিণপূর্ব বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন দক্ষিণপশ্চিম বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় আম্ফান সামান্য উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে একই এলাকায় অবস্থান করছে। আগামী মঙ্গলবার অথবা বুধবার এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব বাংলাদেশে পড়তে পারে। এমনটি জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা।

আবহাওয়াবিদ মনোয়ার হোসেন জানান, ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের প্রভাব বাংলাদেশে পড়তে তিন থেকে চারদিন সময় লাগবে।

এছাড়া আবহাওয়াবিদ মো. আফতাব উদ্দিন বলেন, ‘বাংলাদেশে এটি সরাসরি আঘাত হানবে কি না এমনটা বলার সময় আসেনি। কারণ সেটি অনেক দূরে অবস্থান করছে। সেই সঙ্গে ঘূর্ণিঝড়ের চূড়ান্ত প্রস্তুতি নেয়ার মতো তেমন বিপজ্জনক সময় এখনও আসেনি।’

যদিও ইতোমধ্যে বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদফতর দেশের সমুদ্রবন্দরগুলোকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলেছে।

অন্যদিকে সকালে আবহাওয়া অধিদফতর তাদের বিশেষ বুলেটিনে জানিয়েছে, দেশের চারটি সমুদ্রবন্দরের মধ্যে ঘূর্ণিঝড়টি সবচেয়ে বেশি পটুয়াখালী জেলায় অবস্থিত পায়রা সমুদ্রবন্দরের কাছাকাছি অবস্থান করছে। তারপর ঘূর্ণিঝড়ের কাছাকাছি অবস্থান করা সমুদ্রবন্দর হচ্ছে বাগেরহাটের মোংলা সমুদ্রবন্দর। অর্থাৎ বাংলাদেশে ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত করলে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের পটুয়াখালী, বরগুনা, পিরোজপুর, বাগেরহাট, সাতক্ষীরা অঞ্চল দিয়ে প্রবেশ করার সম্ভাবনা বেশি।

আবহাওয়া অফিস বলেছে, আম্ফান আজ সকাল ৬টায় (১৭ মে) চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৩৪৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ২৮০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ২৭৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ২৫৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘণীভূত হয়ে উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।

 

জিএসনিউজ/এমএইচএম/এএএন

আপনার মতামত লিখুন :